সরকারি সা’দত কলেজে ককটেল বিস্ফোর কমিটি স্থগিত।

মোঃ তুহিন মিঞা, টাঙ্গাইলঃ | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৮
সরকারি সা’দত কলেজে ককটেল বিস্ফোর কমিটি স্থগিত।
বুধবার (৩ জানুয়ারি) বঙ্গের আলীগড় খ্যাত টাঙ্গাইলের করটিয়া সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ছাত্রলীগের পৃথক দুইটি কমিটির দ্বন্দ্বে ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হয়ে ওঠেছে। ওই দ্বন্দ্বে জের ধরে দুপুরে কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটালে শিক্ষার্থীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগ নেতা সজিবকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এদিকে সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি স্থগিত করা হয়েছে। বুধবার (৩ জানুয়ারি) বিকেলে জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর মিলন মাহমুদকে আহ্বায়ক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের একপক্ষ। এতে স্বাক্ষর করেন টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, যুগ্ম-আহ্বায়ক তানভীরুল ইসলাম হিমেল ও শফিউল আলম মুকুল। কমিটি প্রকাশ করার পরপরই শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। এই কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রলীগের পদ বঞ্চিত পক্ষ। এদিকে, মঙ্গলবার সা’দত কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রতন মিয়াকে আহ্বায়ক করে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ট অপর একটি কমিটির অনুমোদন দেয় টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগ আরেক পক্ষ। এতে স্বাক্ষর করেন টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক রনি আহম্মেদ এবং রাশেদুল হাসান জনি। সা’দত কলেজে ছাত্রলীগের ওই পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। বুধবার দুপুরের দিকে বহিরাগত সজিব(২৮) নামে এক যুবক প্রশাসনিক ভবনের সামনে একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে ক্যাম্পাসে ছুটোছুটি করতে থাকে। এ সময় কলেজের ছাত্রলীগ নেতা রতন মিয়া, সাদ্দাম হোসেন বাঁধন, ইলিয়াস হাসান, সৈকত ও কলেজের প্রধান সহকারী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা ককটেল বিস্ফোরণকারী বহিরাগত সজিবকে ধরে পিটুনি দেয়। পরে তাকে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। আটককৃত সজিবের বাড়ি নাগরপুর উপজেলায়। সে টাঙ্গাইল শহরের থানাপাড়ায় মেসে থাকে। মিলন মাহমুদকে আহ্বায়ক করে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের যে কমিটি দেয়া হয়েছে সজিব ওই কমিটির সমর্থক বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে করটিয়া সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল করিম জানান, ককটেল বিস্ফোরণকারী সজিব বহিরাগত। সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সহায়তায় তাকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সায়েদুর হক জানান, সা’দত কলেজে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় সজিব নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। আটক সজিবকে ছাত্ররা কিছু উত্তম-মধ্যম দিয়েছে। তাকে পুলিশ প্রহরায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান।
সরকারি সা’দত কলেজে ককটেল বিস্ফোর কমিটি স্থগিত।

মোঃ তুহিন মিঞা, টাঙ্গাইলঃ
বুধবার (৩ জানুয়ারি) বঙ্গের আলীগড় খ্যাত টাঙ্গাইলের করটিয়া সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ছাত্রলীগের পৃথক দুইটি কমিটির দ্বন্দ্বে ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হয়ে ওঠেছে। ওই দ্বন্দ্বে জের ধরে দুপুরে কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটালে শিক্ষার্থীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগ নেতা সজিবকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এদিকে সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি স্থগিত করা হয়েছে। বুধবার (৩ জানুয়ারি) বিকেলে জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর মিলন মাহমুদকে আহ্বায়ক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের একপক্ষ। এতে স্বাক্ষর করেন টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, যুগ্ম-আহ্বায়ক তানভীরুল ইসলাম হিমেল ও শফিউল আলম মুকুল। কমিটি প্রকাশ করার পরপরই শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। এই কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রলীগের পদ বঞ্চিত পক্ষ। এদিকে, মঙ্গলবার সা’দত কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রতন মিয়াকে আহ্বায়ক করে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ট অপর একটি কমিটির অনুমোদন দেয় টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগ আরেক পক্ষ। এতে স্বাক্ষর করেন টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক রনি আহম্মেদ এবং রাশেদুল হাসান জনি। সা’দত কলেজে ছাত্রলীগের ওই পাল্টাপাল্টি কমিটি নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। বুধবার দুপুরের দিকে বহিরাগত সজিব(২৮) নামে এক যুবক প্রশাসনিক ভবনের সামনে একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে ক্যাম্পাসে ছুটোছুটি করতে থাকে। এ সময় কলেজের ছাত্রলীগ নেতা রতন মিয়া, সাদ্দাম হোসেন বাঁধন, ইলিয়াস হাসান, সৈকত ও কলেজের প্রধান সহকারী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা ককটেল বিস্ফোরণকারী বহিরাগত সজিবকে ধরে পিটুনি দেয়। পরে তাকে টাঙ্গাইল মডেল থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। আটককৃত সজিবের বাড়ি নাগরপুর উপজেলায়। সে টাঙ্গাইল শহরের থানাপাড়ায় মেসে থাকে। মিলন মাহমুদকে আহ্বায়ক করে কলেজ শাখা ছাত্রলীগের যে কমিটি দেয়া হয়েছে সজিব ওই কমিটির সমর্থক বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে করটিয়া সরকারি সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল করিম জানান, ককটেল বিস্ফোরণকারী সজিব বহিরাগত। সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সহায়তায় তাকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সায়েদুর হক জানান, সা’দত কলেজে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় সজিব নামে এক যুবককে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। আটক সজিবকে ছাত্ররা কিছু উত্তম-মধ্যম দিয়েছে। তাকে পুলিশ প্রহরায় টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান।