ঝালকাঠিতে ছাত্রীকে জোড়পূর্বক দেহ ব্যবসার নামে ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেফতার নারীসহ ৪

মোঃ রাজিব তালুকদার: | সোমবার, জানুয়ারী ২৯, ২০১৮
ঝালকাঠিতে ছাত্রীকে জোড়পূর্বক দেহ ব্যবসার নামে ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেফতার নারীসহ ৪

ঝালকাঠিতে দশম শ্রেনীর ছাত্রী পারভীন আক্তার (১৬)কে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোড়পূর্বক দেহ ব্যবসার নামে মারধর ও গণধর্ষনের অভিযোগে গ্রেফতার চিহ্নিত দেহ ব্যবসায়ী লিপি বেগম ও তার কথিত স্বামী আরিফ কসাই, গণধর্ষণকারী যথাক্রমে ছালাম সিকদার ও মাঈনুলকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ।

আটককৃত লিপি বেগম বাজার খোলার আরিফর কথিত স্ত্রী, আরিফ কসাই বাজার খোলার চান্দু কসাই’র ছেলে, ছালাম সিকদার সদর উপজেলার উত্তর পিপলিতা গ্রামের খাদেম হোসেনের ছেলে এবং মাঈনুল ইসলাম বাউকাঠি গ্রামের ওয়াহেদ হাওলাদারের ছেলে।

এ ব্যাপারে ঝালকাঠি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রুজু হওয়ার পর আটককৃতদের আদালতে প্রেরন করা হয়। আদালত শুনানী শেষে কারাগারে প্রেরন করেন এবং উদ্ধার হওয়া নাবালিকা পারভিন আক্তারকে মেডিকেল রিপোর্টের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ঝালকাঠি থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান, উদ্ধার হওয়া পারভীন আক্তার এর পিতা বেলায়েত হোসেন মৃধা তাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয় সেখানে তিনি তার দশম শ্রেণীর ছাত্রী পারভীন আক্তারকে সজীব নামের একটি ছেলে মুঠোফোনে পেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অপহরন করে শহরের কলেজ রোডের একটি ভাড়া করা বাসায় আটকিয়ে রেখে মারধর ও ভয়ভীতি দেখিয়ে খদ্দের এনে জোড়-পূর্বক গণধর্ষণ করায়। ২৩ জানুয়ারী গভীর রাতে উক্ত ভাড়া করা বাসা থেকে দুই ধর্ষণকারীসহ লিপি বেগম ও কথিত স্বামী আরিফকে আটক করে পুলিশ।