মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে বাবুর্চি আটক

বরিশাল ব্যুরো | মঙ্গলবার, মার্চ ৬, ২০১৮
মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে বাবুর্চি আটক
বরিশালের উজিরপুরে অষ্টম শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে শারীরিক পরীক্ষার জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টাপ ক্রসিস সেন্টারে পাঠিয়েছে।

সোমবার সকালে ওই ছাত্রীর বাবা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে রফিকুল ইসলাম (২৬) নামে এক বাবুর্চিকে আটক করে পুলিশ। তিনি উজিরপুরের বামরাইল ইউনিয়নের দক্ষিণ কালিহাতা এতিমখানায় বাবুর্চি হিসেবে কাজ করছেন এবং একই উপজেলার গুঠিয়া ইউনিয়ননের বান্নার সেনেরহাট গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সুত্রে জানা যায়, রবিবার দিবগত রাতে মাদ্রাসাছাত্রীর বাবা অসুস্থ স্ত্রী ও তার মেয়েকে ঘরে রেখে পাশের মসজিদের বার্ষিক মাহফিল শুনতে যান। রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাড়ি সংলগ্ন দক্ষিণ কালিহাতা এতিমখানার বাবুর্চি রফিকুল ইসলাম বাড়ি গিয়ে ওই ছাত্রীকে কথা শোনার জন্য ডাক দেন। কথা শোনার জন্য ছাত্রীটি ঘর থেকে বেড় হলে রফিকুল তার মুখ চেপে টেনে পাশের একটি বাগানে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। ধর্ষণের শিকার মাদ্রাসাছাত্রীটি ঘরে এসে বিষয়টি তার মাকে জানায়। ওই রাতে ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয়রা রফিকুল ইসলামকে ধরে এনে মারধর করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। সোমবার সকালে ওই ছাত্রী বাবা থানায় মামলা দায়ের করেন।
 
উজিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শিশির কুমার পাল বলেন, ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় এতিমখানার বাবুর্চি রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি ভিকটিমকে উদ্ধার করে শারীরিক পরীক্ষার জন্য শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।