যৌন উত্তেজনার হালুয়া খেয়ে দুইজনের মৃত্যু !

স্টাফ রিপোর্টার | শুক্রবার, মার্চ ১৬, ২০১৮
যৌন উত্তেজনার হালুয়া খেয়ে দুইজনের মৃত্যু !

সাভারের আশুলিয়ায় কবিরাজের যৌন উত্তেজক হালুয়া খেয়ে দুই গার্মেন্ট শ্রমিক মারা গেছেন। সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরও দুইজন। তাদের একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। গত বুধবার রাতে হালুয়া খেলে অসুস্থ্য হয়ে পড়েন শ্রমিকরা। নিহত দুইজন হলেন, টাঙ্গাইল জেলার ভূয়াপুর থানাধীন ধুবুলিয়া গ্রামের সবুজ শেখের ছেলে মোতালেব মিয়া এবং একই গ্রামের জয়নাল আবেদিনের ছেলে জিল্লু আবেদিন।

এছাড়া একই গ্রামের আবুল শেখের ছেলে শামীম শেখ ও ফরিদ নামে আরেক পোশাক কারখানার নিরাপত্তা কর্মী ফরিদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গুরুতর অসুস্থ শামীম শেখের ভাগিনা রতন ও প্রতিবেশীরা জানায়, জিল্লু, ফরিদ, শামীম, নাছির ও তার সহোদর মোতালেবসহ পাঁচ জনই ভাদাইল এলাকার শ্রমিক কলোনির বাসায় ভাড়া থেকে পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। বুধবার রাতে নাছির এক কৌটা যৌন উত্তেজক ভেষজ হালুয়া তৈরি করে রুমে রেখে কর্মস্থলে চলে যান।

পরে তার অনুপস্থিতিতে কক্ষে থাকা মোতালেব, জিল্লু, ফরিদ ও শামীম কৌটার হালুয়া খান। এর ঘণ্টা খানেক পর তারা নিজ নিজ কারখানায় রাতে কাজে যোগ দেন। কারখানায় কর্মরত অবস্থায় তাদের শ্বাসকষ্ট ও বমিভাব হলে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। এ সময় পথে জিল্লু ও ভোর রাতে মোতালেব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ বিষয়ে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. ইয়াসমিন খানম জানান, খাবারের সঙ্গে শরীরের জন্য ক্ষতিকারক উত্তেজক তরল সেবনের কারণে বিষক্রিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসাধীন দুই জনের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এখন পর্যন্ত মৃত্যুর ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আউয়াল। তবে হালুয়া ভর্তি কৌটার মালিক নাছির পলাতক রয়েছেন।