অপরাধ সংবাদ : প্রেস বিজ্ঞপ্তি আজ ২২ এপ্রিল ২০১৮ মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি

প্রেস বিজ্ঞপ্তি আজ ২২ এপ্রিল ২০১৮ মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি

রাজশাহী প্রতিবেদক | রবিবার, এপ্রিল ২২, ২০১৮
প্রেস বিজ্ঞপ্তি আজ ২২ এপ্রিল ২০১৮ মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি
আজ সকাল ১০ টার সময় জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলা কমিটি উদ্দ্যোগে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নে গত ০৬ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্মের আদিবাসী বাঙালিদের উপর বর্বর হামলা, অগ্নিসংগযোগ, লুটপাট, ভাংচুর, হত্যা, নির্যাতনের বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ রাজশাহী সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলা কমিটির সভাপতি বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়। বক্তব্য রাখেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সাধারণ সম্পাদক গণেশ মার্ডি, দপ্তর সম্পাদক সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, রাজশাহী জেলা সাধারণ সম্পাদক শুসেন কুমার স্যামদুয়ার, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী জেলা কমিটির সভাপতি কল্পনা রায়, জনউদ্দোগ রাজশাহী ফেলো জুলফিকার আহম্মেদ গোলাম, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় সভাপতি নকুল পাহান প্রমূখ্য।
মানববন্ধন শেষে জাতীয় আদিবাসী পরিষদের নেতৃবৃন্দ রাজশাহী জেলা প্রশাসকের দপ্তরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরারবে।
বক্তরা বলেন, সারাদেশে আদিবাসীদের উপর হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ভাংচুর, নির্যাতন, ধর্ষন বন্ধ করতে হবে এবং দোষীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে।৬ নভেম্বর ২০১৬ তা-বলীলার পর থেকে আদিবাসী সাঁওতাল জনগোষ্ঠী বাড়িঘর হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান করছে। গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জের সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম-এর রিক্যুইজিশন করা ১৮৪২.৩০ একর সম্পত্তি আদিবাসী বাঙালিদের ফেরত দিতে হবে। আদিবাসী বাঙালিদের সম্পত্তি  কোন সরকার/কর্তৃপক্ষ কর্তৃক রিক্যুইজিশন করা এখতিয়ার বহির্ভূত হওয়ায় এ ধরণের কার্য বাতিল ও পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করে আদিবাসীদের সম্পত্তি ফেরত দিতে হবে।  আদিবাসী সাঁওতালপল্লীতে ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট এবং গুলি করে শ্যামল হেমব্রম, মঙ্গল মার্ডি ও রমেশ টুডু নিহত ও গুরুতর আহত করার সাথে জড়িত উস্কানীদাতা ও সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং নিহত ও আহতদের জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ৬ নভেম্বর ২০১৬ তারিখের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ আদিবাসী-বাঙালিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। আদিবাসী-বাঙালি নারী-পুরুষের উপর স্থানীয় সন্ত্রাসীদের জুলুম ও পুলিশী হয়রানি বন্ধ করতে হবে। আদিবাসী সাঁওতালদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগকারী চিহ্নিত পুলিশ কর্মকর্তাসহ জড়িতদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে।