জামালপুরে সাংবাদিকদের মারধরের অভিযোগ

ডেস্ক রিপোটার | সোমবার, মে ২৮, ২০১৮
জামালপুরে সাংবাদিকদের মারধরের অভিযোগ

জামালপুরের সরিষাবাড়িতে প্রকাশ্যে কয়েকজন সাংবাদিককে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) অফিসে রবিবার এই ঘটনা ঘটে। এর জন্য সরিষাবাড়ির  সাবেক সাংসদ ডা. মুরাদ হাসানের সমর্থক যুবলীগ ক্যাডারদের দায়ী করছেন সাংবাদিকরা।

জানা যায়, রবিবার সরিষাবাড়ি উপজেলার ৪০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী পদে নিয়োগ পরীক্ষা ছিল। ৪০টি দপ্তরি পদের মধ্যে ১৩টি পদে নিয়োগ দেয়ার দাবি ছিল সাবেক সাংসদের। সকাল ১০টায় নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগ মুহূর্তে সাবেক সাংসদের সমর্থক উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম আশরাফ একদল ক্যাডার নিয়ে সেখানে হামলা চালান বলে অভিযোগ প্রত্যক্ষদর্শীদের। তারা সাবেক এমপির তালিকা অনুযায়ী নিয়োগ দেয়া না হলে কোনো পরীক্ষা হবে না বলে হুমকি দেন।এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে উপস্থিত সাংবাদিকদের চলে যেতে বলেন তারা। সাংবাদিকরা পেশাগত দায়িত্ব পালনের স্বার্থে অবস্থান করলে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেন।

এই সময় যুগান্তরের প্রতিনিধি জহুরুল ইসলাম ঠান্ডু, সমকাল প্রতিনিধি সোলায়মান হোসেন হরেক, এসটিভি প্রতিনিধি মশিউর রহমান ও ভোরের কাগজ প্রতিনিধি মোস্তাক আহমেদ মনিরকে মারধর করেন তারা।সিনিয়র সাংবাদিক জহুরুল ইসলাম ঠান্ডুকে ইউএনওর কক্ষ থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে নিচতলা নিয়ে আসে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সরিষাবাড়ি হাসপাতালে নিতে সন্ত্রাসীরা সেখানেও বাধা দেয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরে তাকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সরিষাবাড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বিষয়টি স্বীকার করে বলেছেন, ঘটনার পর নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

এঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন জামালপুরের সাংবাদিক নেতারা। জামালপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আজিজুর রহমান ডল ও সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসাইন, জামালপুর জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এম, এ জলিল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইউসুফ আলী অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।