টানা অবরোধে যানচলাচলের পাশাপাশি রেলের সিডিউল মারাত্বক বিপর্যস্ত যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ

বদিয়ার রহমান,লালমনিরহাট প্রতিনিধি | বুধবার, জানুয়ারী ২৮, ২০১৫
টানা অবরোধে যানচলাচলের পাশাপাশি রেলের সিডিউল মারাত্বক বিপর্যস্ত যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ
প্রায় মাসব্যাপি ২০ দলীয় জোটের টানা অবরোধ আর হরতালে উত্তরাঞ্চল লালমনিরহাটে যানবাহন চলাচলে বিঘিœতর পাশাপাশি রেলের সিডিউল ও মারাতবক বিপর্যস্ত হয়ে পরেছে। লালমনিরহাট-ঢাকা-রংপুর-দিনাজপুর ও পাটগ্রাম-বুড়িমারী সকালের ট্রেন রাতে আবার রাতের ট্রেন পরদিন সকালে এমন ভাবে চলাচলে সাধারণ দুরবর্তী যাত্রীরা যেমন চরম বিপাকে পরেছেন তেমনি মারাত্বক ক্ষতির সম্মুক্ষিনে পরেছেন বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন। লালমনিরহাট রেলওয়ে সুত্রে জানাগেছে, লালমনি এক্্রপ্রেস ট্রেনটি বিশেষ করে নির্ধারিত সময়ের ২৪ ঘন্টা পর চলাচল করছে। পাশাপাশি লোকাল ট্রেনগুলিও নির্ধারিত সময়ের প্রায় ৬ ঘন্টা পর চলাচল করছে। ষ্টেশন মাষ্টার আকবর আলী মঙ্গলবার এই প্রতিবেদককে জানান, লালমনিরহাটের রেল ষ্টেশনে যাত্রীদের দুর্ভোগের শেষ নেই। এভাবে ঘন্টার পর ঘন্টা আর দিনের পর দিন সাধারণ যাত্রীরা কনকনে ঠান্ডা আর শীত কুয়াশা উপেক্ষা করে বসে আছেন। তিনি জানান, মঙ্গলবারের লালমনি এক্্রপ্রেস ট্রেন সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে ছাড়ার কথা থাকলেও বিকেল ৫টার সময়ও ট্রেন লালমনিরহাটে পৌছেনি। ফলে রাত ১২ টার আগে ট্রেনটি যাওয়ার সম্ভবনা কম রয়েছে। এদিকে সকাল ৬টা ৫০ মিনিটে লালমনিরহাট থেকে দিনাজপুর অভিমুখে ৬১ নম্বর কমিউটার ট্রেনটি প্রায় দেড় ঘন্টা বিলম্বে যায়। আবার ওই ট্রেনটি ৬২ নম্বর হয়ে দেড়টার সময় লালমনিরহাট পৌছার কথা থাকলেও প্রায় ৫ টার সময় আসে। ফলে সাধারন যাত্রীরা চরম বিপাকে পরেছেন। এদিকে সারাদেশের ন্যায় নাশকতা এড়াতে আইন শৃংখলা বাহিনীর প্রহারায় মালবোঝাই ও খালী যানবাহন চলাচল করলেও অনেক সময় তাদের অভাবে ট্রাক চালকরা নিজেরাই ঝুকি নিয়ে চলছেন। তারা জানান, টানা অবরোধে জীবন যাপন একেবারে বিপর্যস্ত হয়ে পরেছে। তাই নিজেরাই পেটের দায়ে ঝুকি নিয়ে রাস্তায় চলাচল করছেন। তবে লালমনিরহাটে শান্তিপুর্ণ ভাবে অবরোধ ও হরতাল পালিত হওয়ায় তারা স্বস্থির মুখে রাস্তায় ট্রাক চলাচল করতে পারছেন বলে জানান।