হাজার রাত অপেক্ষায় শ্রেষ্ঠ লায়লাতুল কদরের রাত্রি

| মঙ্গলবার, জুন ১২, ২০১৮
হাজার রাত অপেক্ষায় শ্রেষ্ঠ লায়লাতুল কদরের রাত্রি
হাজার রাত অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ শবে কদর বা লায়লাতুল কদরের রাত্রিতে ইবাদতে মশগুল থাকেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। ইসলামী চিন্তাবিদরা জাহান্নাম থেকে মুক্তির এ রজনী ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে অতিবাহিত করার পরামর্শ দিয়েছেন যেন কোনভাবেই ফযিলতপূর্ণ এ রাতের নেয়ামত থেকে মুমিনরা বঞ্চিত না হয়।
রমজান মাসের শেষ ১০ দিনের বেজোড় রাতগুলোতে শবে কদর সন্ধান করতে বলেছেন মহানবী হযরত মুহম্মদ সাল্লালাহু ওলাইহি ওয়াসাল্লাম। লাইলাতুল কদর বিশ্ব মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য অত্যন্ত পুণ্যময় এবং সর্বাপেক্ষা উত্তম রাত। এই রাত বিশ্ববাসীর জন্য আল্লাহর অশেষ রহমত, বরকত ও ক্ষমা লাভের অপার সুযোগ এনে দেয়। এই রাত হচ্ছে মহান আল্লাহর কাছে সুখ, শান্তি, ক্ষমা ও কল্যাণ প্রার্থনার এক অপূর্ব সুযোগ।

 

জামিয়া কাসিমিয়া দারুল উমুল মাদ্রাসার ও এতিমখানার অধ্যক্ষ আলহাজ হাফেজ মাওলানা ফারুক হোসাইন বলেন, মহান আল্লাহ তায়ালা তার ভাষা বলেছেন এই রাত্রটি হাজার রাত থেকে উত্তম।

 

ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অ্যান্ড টেকনোলজি সহকারি অধ্যাপক মোখতার হোসেন বলেন, লায়লাতুল কদরকে তোমরা রমজানের শেষ দশকের বিজোদ রাত্রিগুলোতে তালাশ কর। আবার কোন সময়ে লায়তুল কদর ২৫ রমজান,২৭ রমজান, ২৯ রমজানের রাত্রিতে তালাশ কর। সেই সঙ্গে আবার কোন রাত্রিতে বলেছেন, ২৭ রমজানে তালাশ কর।


মর্যাদাপূর্ণ এ রাতে নফল নামাজ জিকির-আসগার ও কোরআন তেলওয়াতের বিশেষ গুরুত্বের কথা বলেছেন ইসলামী চিন্তাবিদরা।

ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অ্যান্ড টেকনোলজি সহকারি অধ্যাপক মোখতার হোসেন বলেন, লায়লাতুল কদরে যে ব্যক্তি দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে সালাত আদায় করবে, আল্লাহ তায়ালা তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ মাফ করবেন।

মহিমান্বিত রজনী শবে কদরে, ইবাদতের শুভফল লাভ করে মানবতার কল্যানে তা বিশ্বময় ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান ইসলামী গবেষকদের।