আট বছরের প্রেম ভেঙে বিয়েতে অস্বীকৃতি, তরুণীর আত্মহত্যা

অপরাধ সংবাদ | সোমবার, জুলাই ২, ২০১৮
আট বছরের প্রেম ভেঙে বিয়েতে অস্বীকৃতি, তরুণীর আত্মহত্যা

পরিবারের অসম্মতিতে দীর্ঘ আট বছরের প্রেম ভেঙে দেন প্রেমিক। এ কষ্ট সইতে পারেননি বিয়ের স্বপ্নে বিভোর প্রিয়াংকা পাল (২৫)। প্রেমিক ও তার পরিবারকে দায়ী করে সুইসাইড নোট লেখে গলায় ফাঁস দিয়ে পরপারে পাড়ি জমান। এভাবেই ঝরে গেল আরেকটি হাসিমুখ প্রাণ।

রবিবার দুপুরে ধামরাই থানার কালামপুরে অবস্থিত এনজিও প্রতিষ্ঠান সজাগ এর কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত প্রিয়াংকা সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজি বিভাগের ১৫ তম ব্যাচের প্রাক্তন ছাত্রী।

তিনি সজাগ এর সাংস্কৃতিক প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি ঢাকার ধামরাই থানার পাঠানতলা গ্রামে।

জানা যায়, রবিবার দুপুরে নিজের প্রেমিক অমিতের পরিবারের সদস্যদের ছবি ফেসবুকে শেয়ার দিয়ে প্রিয়াংকা লিখেন, ‘আমার আত্মহত্যার জন্য এরা দায়ী।’ কাছের মানুষেরা এই স্ট্যাটাস দেখার পর প্রিয়াংকার বাসায় ফোন করেন। তারপর প্রিয়াংকার কর্মস্থলে যোগাযোগ করেন প্রিয়াংকার পরিবার। ধামরাই থানার কালামপুরে অবস্থিত এনজিও প্রতিষ্ঠান সজাগ এর সাংস্কৃতিক প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন প্রিয়াংকা।

সবাই তড়িৎ গতিতে ছুটে এলেও ধরা-ছোয়ার বাইরে চলে যান প্রিয়াংকা। সজাগের অফিসের একটি কক্ষ থেকে প্রিয়াংকার গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস দেয়া অবস্থায় ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

দীর্ঘ আট বছর ধরে  প্রেমের সম্পকর্ ছিল প্রিয়াংকা-অমিত যুগলের। স্বপ্ন তাদের বিয়ে করে সংসার করবেন। কিন্তু বাঁধ সাধেন অমিতের বাবা-মাসহ পুরো পরিবার। তারা প্রিয়াংকাকে কখনই মেনে নেবেন না বলে জানিয়ে দেন।