দুই বছরের নাতিকে চুরি করলেন দাদি!

| শুক্রবার, জুলাই ৬, ২০১৮
দুই বছরের নাতিকে চুরি করলেন দাদি!
ফরিদপুরে দাদির বিরুদ্ধে দুই বছর ছয় মাস বয়সী এক দুগ্ধপোষ্য নাতিকে চুরি করার অভিযোগ গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শহরের হাবেলী গোপালপুর মহল্লায়। আবরার নামের শিশু সন্তানকে উদ্ধার করার জন্য আইনি সহায়তা চেয়ে কোতোয়ালী থানায় গত বৃহস্পতিবার রাতে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন শিশুটির মা।

শিশুটির মায়ের নাম লুবনা ইয়াসমিন আর বাবার নাম স্বামী সাজ্জাদ (৪৩) হোসেন। শিশুটির বাবা শহরের হাবেলী গোপালপুরের মৃত তোজাম্মেল হোসেনের একমাত্র ছেলে। রোকসানা হোসেন তনু (৪১) নামে তার আরেক বোন রয়েছে।

শিশুটির মা লুবনা ইয়াসমিন জানান, তার শাশুড়ি সালেহা বেগম (৬৫) ঢাকায় ননদের বাড়িতে থাকেন। ফরিদপুরে এসে গত সোমবার (৩ জুলাই) রাতে আবরারকে নিয়ে পাশের ননদের ঘরে শুতে যান শাশুড়ি। পরের দিন মঙ্গলবার সকালে ননদের ঘরে গিয়ে দেখেন কেউ নেই। এসময় ফোন করলে সালেহা বেগম তাকে জানান, আবরারকে নিয়ে তিনি ঢাকায় রওনা হয়ে গেছেন।

বর্তমানে তারা ঢাকার রমনার ৩০ সিদ্বেশ্বরী সড়কের ঠিকানায় মেয়ের বাসায় অবস্থান করছেন বলে জানান লুবনা। তবে কী কারণে এই শিশুকে এভাবে মা-বাবার অজান্তে নিয়ে যাওয়া হয়েছে জানতে চাইলে লুবনা বলেন, আমার ননদ রোকসানা হোসেন তনুর কোনো ছেলে সন্তান নেই। ননদের কোলে তুলে দিতেই বাচ্চাকে চুরি করে নিয়ে গেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শিশু আবরারকে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করে সালেহা বেগম বলেন, বাচ্চাকে প্রতিপালন করার মতো যোগ্যতা ওদের নেই। বাচ্চাটি অ্যালার্জিতে ভুগছে। কিন্তু তার কোনো চিকিৎসা না দিয়ে ঘরে ফেলে রেখেছে। শিশুটিকে ওরা মেরে ফেলবে।

ছেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমার ছেলে তার জীবন নষ্ট করেছে। এখন আমার নাতির জীবনও ধ্বংস করতে চাইছে। এজন্য নাতিকে আমার কাছে নিয়ে এসেছি। নাতিকে ডাক্তার দেখিয়ে প্রয়োজন হলে আমিই পড়াবো, মানুষ করবো।

এদিকে, মায়ের এসব অভিযোগ অস্বীকার করে সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমি বাচ্চার চিকিৎসা করছিলাম তার ট্রিটমেন্টের সকল কাগজপত্র রয়েছে। আমি আমার সন্তানকে আমার কাছে ফেরত চাই। আমি আমার শিশু সন্তানকে ফেরত চাই।

এ ব্যাপারে জানতে কোতোয়ালী থানার ওসি এএফএম নাসিমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কোতোয়ালী থানার একজন অফিসারকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।