ঝালকাঠিতে প্রতারক স্বামীর তথ্য ফাঁস করলেন স্ত্রী

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: | সোমবার, জুলাই ২৩, ২০১৮
ঝালকাঠিতে প্রতারক স্বামীর তথ্য ফাঁস করলেন স্ত্রী

ঝালকাঠিতে হাফিজা বেগম তাঁর স্বামী কুদ্দুস ড্রাইভারের গোপন নিযার্তনের তথ্য ফাঁস করলেন ।গতকাল বুধবার বিকালে সংবাদকর্মির কাছে স্বামীর বিভিন্ন অপকর্ম ও গোপন তথ্য তুলে ধরলেন।হাফিজা বেগম(৪৩) ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলার ভৈরবপাশা ইউনিয়নের ইশ্বরকাঠি গ্রামের হাসেন আলীর মেয়ে। তিনি জানান, দীর্ঘ ২৭বছর পুর্বে ১৯৯২সালে শরীয়া মোতাবেক একই উপজেলার নলছিটি পৌর এলাকার মালীপুর গ্রামের এলাল উদ্দিনের ছেলে কুদ্দুস ড্রাইভারের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।প্রায় দীর্ঘ ১২ বছর ঢাকা শহরে রামপুরা এলাকায় বসবাস করে এসেছিলাম।আমার গর্ভে দুইটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়।

বড় কন্যা সন্তান জাকিয়া সুলতানা মিতু ১৪বছর বয়সে কুদ্দুস ড্রাইভারের মানুষিক নিযার্তনের শিকার হয়ে রোগক্রান্ত হয়ে ২০১২সালে মৃত্যুবরণ করে।ছোট মেয়েটি গত একবছর যাবৎ নিখোজ করে ঢাকা বসত বাসা থেকে নিয়ে এসে পিতার কাছে নলছিটির মালীপুরের  সৎ মায়ের নিকট রেখে দিয়েছে। আর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে বসতঘরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে ঘুম পাড়িয়েতালাবদ্ধ করে রেখে দিয়েছে।বিয়ের পরজানতে পারি প্রতারক কুদ্দুস ড্রাইভার পুর্বে আরও চারটি বিয়ে করেন।

এমন কি মাদক ব্যবসা ও নারী ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রয়েছেন,এ ব্যপারে ঢাকা শহরের একাধিক থানায় ও নলছিঠি থানায় তার নামে বিভিন্ন অপরাধের মামলা রয়েছে বলে  জানান।আমার সাথে বিয়ের পরও সে আবার বিয়ে করে। শেষের স্ত্রী’ শারমীনবাখেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠি গ্রামের তৈয়ব আলী মাতুব্বরের মেয়ে। অপর আর এক স্ত্রী একই উপজেলার বৈচন্ডি গ্রামের মানিক কাজি’র মেয়ে ফেরদৌসি বেগম।আরও অনেক স্ত্রী রয়েছে।আমার স্বামী কিছুদিন আগে টাকার জন্য আমাকে চাপ দিলে বাবার বসতী বাড়ীর জমি বিক্রি করে টাকা দিতে অপরাগ হলে আমাকে হত্যা করা জন্য গলায়,পিঠে রামদা দিয়ে আঘাত করে আহত করে।

এ ব্যপারে নলছিটি থানায় একাধিকবার অভিযোগ করে কোন সুরাহা হয়নি। বর্তমানে আমি বাবার বসত বাড়ীতে থাকছি। অন্য দিকে আমার ছোট মেয়ে মিথিলা ফারজানা(১৫)’র উপর নির্যাতন চালাচ্ছে।আমার মেয়ে মুঠোফোনে জানায় তাকে জোড় করে সৎ মাতা ঘুমের ঔষধ খাইয়ে তালাবদ্ধ করে রেখেছে।এ ব্যপারে মুঠোফোনে কুদ্দুস ড্রাইভার জানায় হাফিজা আমার স্ত্রী তবে বিভিন্ন জনের সাথে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে আসছে।