কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে জোট নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদক | বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৬, ২০১৮
কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে জোট নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের বৈঠক
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবির পর এবার আওয়ামী লীগের কট্টর সমালোচক হয়ে উঠা দলের সাবেক নেতা আবদুল কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার বিকালে সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই বৈঠক হয়।

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে জোট সম্প্রসারণের বিষয়ে আওয়ামী লীগের যে চিন্তা, আর অংশ হিসেবেই এই বৈঠক হয়। অর্থাৎ কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের নেতাকে জোটে নেয়া বা নির্বাচনী সমঝোতার বিষয়ে আলোচনা হয়েছেভ।

তবে বৈঠক শেষে কোনো সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়নি কোনো পক্ষ থেকে। বৈঠকে কাদরে সিদ্দিকী ওবায়দুল কাদেরকে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসম্প্রদায়িক দলের নেতৃত্বে যে জোট রয়েছে তিনি সেখানেই যোগ দেবেন। এ বিষয়ে আগামীতে আরও আলোচনা করা হবে।

মুক্তিযুদ্ধের সময় গৌরবোজ্জল ভূমিকা পালন করা কাদের সিদ্দিকী আওয়ামী লীগেরই নেতা ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি তার আবেগ সর্বজনবিদীত। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তিনি সশস্ত্র প্রতিরোধও করেছিলেন। আর এই লড়াইয়ের অংশ হিসেবে তিনি ভারতে অবস্থান নেন।

১৯৯০ সালে এরশাদের পতনের পর দেশ গণতন্ত্রে ফেরার পর কাদের সিদ্দিকী  দেশে ফেরেন। ১৯৯১ এবং ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে টাঙ্গাইলের একটি আসন থেকে ভোটের লড়াইয়ে নামেন।

৯৬ সালের নির্বাচনে সংসদ সদস্য হলেও দুই বছর পর আওয়ামী লীগ ছেড়ে গঠন করেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে দলটির এক ধরনের সমঝোতা হয়েছিল বলে প্রচার আছে।

আর গত ২০ বছর ধরেই শেখ হাসিনার কঠোর সমালোচনা করে আসছেন কাদের সিদ্দিকী। এর মধ্যে গত ডিসেম্বরে তিনি ছাড়াও বিকল্প ধারার বদরুদ্দোজা চৌধুরী, জেএসডির আ স ম আবদুর রব এবং নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মিলে গড়ে তুলের যুক্তফ্রন্ট।

ঘোষণা ছিল এই জোট তৃতীয় শক্তি হওয়ার চেষ্টা করবে। তবে মান্না ইদানীং ঘনিষ্ঠতা বাড়িয়েছেন বিএনপির সঙ্গে। আগামী জাতীয় নির্বাচনে জোট বা সমঝোতা বা জাতীয় ঐক্য নিয়েও কথা হয়েছে।

এর মধ্যে কাদের সিদ্দিকী অবশ্য যুক্তফ্রন্ট ছেড়ে দিয়েছেন। আর এরপর থেকে তিনি আর আগের মতো আওয়ামী লীগবিরোধী কঠোর বক্তব্য দিচ্ছেন না।

ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে জনতা লীগের নেতা কিছু বলতে রাজি হননি। বলেন, ‘এ বিষয়ে এ মুহূর্তে আমার কিছু বলার নাই। আপনি ওনার (ওবায়দুল কাদের) সঙ্গে কথা বলুন।’

নাজমুল হুদার সঙ্গে আবার বৈঠক

কাদের সিদ্দিকীর পর ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির সাবেক নেতা এবং বর্তমানে তৃণমূল বিএনপির চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা।

দুই নেতার মধ্যে এই বৈঠক হয় আধা ঘণ্টার মতো। সেখানেও জোটের বিষয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও আগামী ১৫ আগস্ট তৃণমূল বিএনপির পক্ষ থেকে শোক দিবসের কর্মসূচিতে ওবায়দুল কাদেরকে দাওয়াত দেয়া হয়েছে।

জানতে চাইলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের জ্যৈষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা আবু নাসের বলেন, ‘মন্ত্রীর সঙ্গে কাদের সিদ্দিকী ও নাজমুল হুদা সাক্ষাৎ করেছেন। তবে সেখানে কী নিয়ে আলোচনা হয়েছে সেটি আমি জানি না।’

সম্প্রতি নাজমুল হুদা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটে যোগ দেওয়ার বিষয়ে তাঁর আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। তাঁর বিষয়টি আওয়ামী লীগের বিবেচনাধীন আছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিমের সঙ্গে তার কার্যালয়ে গিয়ে দেখা করেন ওবায়দুল কাদের। পরে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা ছিল সৌজন্য সাক্ষাৎ। এখানে রাজনীতির কোনো অংক নেই।’