যমুনায় শতাধিক যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে নিখোঁজ ৩

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, | মঙ্গলবার, আগস্ট ২৮, ২০১৮
যমুনায় শতাধিক যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে নিখোঁজ ৩
মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার চর আলোকদিয়া এলাকায় যমুনা নদীতে ক্লিংকারবাহী কার্গোর ধাক্কায় একটি যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে গেছে। এতে ট্রলারে থাকা শতাধিক যাত্রীর অধিকাংশ সাঁতরে তীরে উঠে এলেও প্রাথমিকভাবে দুই শিশুসহ তিনজন নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে। নিখোঁজদের উদ্ধারে কাজ করছে স্থানীয় প্রশাসনসহ মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও বিআইডব্লিউটিসির উদ্ধারকারীদল।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে চর শিবালয়ের আলোকদিয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার জানান, বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে পাবনা জেলার কাজিরহাট থেকে শতাধিক যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি মানিকগঞ্জের আরিচাঘাটে আসছিল। এ সময় চর শিবালয়ের আলোকদিয়া এলাকায় বিপরীতগামী সিমেন্টের ক্লিংকার বোঝাই এমভি প্রিমিয়ার নামে একটি কার্গো ট্রলারটিকে ধাক্কা দিলে সেটি দুমড়ে-মুচড়ে উল্টে ডুবে যায়। এতে ট্রলারে থাকা শতাধিক যাত্রীর বেশীরভাগই তীরে উঠতে পেরেছে। এদের মধ্যে দুই শিশুসহ তিনজন নিখোঁজ রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তাদের মধ্যে দুইজনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

এরা হচ্ছেন- পাবনার আতাইকোলা গ্রামের নুরু বকস (৪৫) ও পাবনার নাজিরগঞ্জে মুকুল মিয়ার ছয় বছরের মেয়ে মেঘা।

খবর পেয়ে মানিকগঞ্জ দমকল কর্মী, বিআইডব্লিউটিসির উদ্ধারকারী দল ও পুলিশ প্রশাসন উদ্ধার কাজ শুরু করেছে।

দুর্ঘটনাস্থল পরির্দ্শন করেছেন জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস ও পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম।

মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান জানান, যমুনার তীব্র স্রোতের কারণে ডুবে যাওয়া ট্রলারটি ভাটির দিকে চলে যায়। ট্রলারটি সনাক্তকরণ ও নিখোঁজদের উদ্ধারে চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

এদিকে বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক (ট্রাফিক) ফরিদুল আলম বলেন, আরিচা-কাজিরহাট ও পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে ২০টি করে মোট ৪০টি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার অবৈধভাবে ঝুঁকি নিয়ে যাত্রী পারাপার করে। এই অবৈধ ট্রলার চলাচল বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিআইডব্লিউটিসি পক্ষ থেকে মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ি ও পাবনার জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে তিনি অভিযোগ করেন।