পিবিআই-এর তদন্ত প্রতিবেদনের সত্যতা প্রত্যাখান করেছেন সাংবাদিকরা

স্টাফ রির্পোটার | বুধবার, আগস্ট ২৯, ২০১৮
পিবিআই-এর তদন্ত প্রতিবেদনের সত্যতা প্রত্যাখান করেছেন সাংবাদিকরা

প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের মাধ্যমে দেয়া স্মারকলিপিতে সাংবাদিক খায়রুল আলম রফিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানানো হয়েছে। বুধবার ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রেসক্লাব ও বাংলাদেশ অনলাইন সাংবাদিক কল্যাণ ইউনিয়ন (বসকো) মানববন্ধন করে এই স্মারকলিপি প্রদান করে। স্মারকলিপিতে ময়মনসিংহ প্রতিদিনের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোঃ খায়রুল আলম রফিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের খাদ্য বিভাগের ঠিকাদার দ্রুত বিচার আইনে মিথ্যা মামলা দেন এবং পুলিশ বুরে‌্যা অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) প্রতিবেদন প্রদান করে। হাসপাতালে ভাংচুরের ঘটনায় মচিমহা কর্তৃপক্ষ কোন মামলা করেনি। অন্যদিকে ঘটনার সাথে সাংবাদিক খায়রুল আলম রফিক কোন ভাবেই জড়িত না থাকলেও পিবিআই প্রতিবেদন প্রদান করেছে। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ পিবিআই-এর তদন্ত প্রতিবেদনের সত্যতা নিয়ে গভীর সন্দেহ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। অভিযোগ রয়েছে পিবিআই প্রভাবিত হয়ে এই চার্জশীট প্রদান করেছেন। স্মারকলিপিতে যা মিথ্যা ভিত্তিহীন ও রহস্যজনক বলে দাবী করা হয়।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ্য করা হয় ময়মনসিংহ প্রতিদিন পত্রিকায় মচিমহায় অনিয়ম, দুর্নীতি সর্ম্পকে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার জের ধরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা দেয়া হয়। দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় হাসপাতাল পরিচালক সহ দুর্নীতিবাজ ঠিকাদার হাসিম কর্তৃক প্রভাবিত হয়ে পিবিআই তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছেন। এতে স্বাধীন সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে দুর্নীতিবাজদের ষড়যন্ত্র ও শক্তি প্রকাশিত হয়েছে। সাংবাদিক দমন পীড়নে মিথ্যা মামলা হুমকির ফলে ময়মনসিংহে গণমাধ্যম আক্রান্ত হয়েছে। যা সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে মারাত্মক ঝুঁিকর সৃষ্টি করেছে। এ অবস্থায় সাংবাদিক সমাজ ময়মনসিংহ বিভাগের জেলা, উপজেলা মানববন্ধনসহ প্রতিবাদ মুখর হয়েছেন।

অবিলম্বে সাংবাদিক খায়রুল আলম রফিকের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোরালো দাবী উঠেছে। প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে পিবিআই এর মিথ্যা প্রতিবেদন। সেই সাথে পিবিআই এর প্রভাবিত ও মিথ্যা প্রতিবেদন পুনঃ তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, পিবিআই এর তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তা গুরুতর। বির্তকিত প্রতিবেদন অধিকতরে তদন্ত করা হলেই আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে। হাসপাতালের দুর্নীতিবাজচক্র পিবিআই এর তদন্তে প্রভাব বিস্তার করায় সাংবাদিক সমাজ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন স্মারকলিপিতে।