হাসিনা ও মোদিকে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী মুক্তিযোদ্ধা মানিকের অভিনন্দন

সমরেন্দ্র বিশ্বশর্মা | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮
হাসিনা ও মোদিকে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী মুক্তিযোদ্ধা মানিকের অভিনন্দন

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কণ্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা এবং বন্ধু দেশ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতীবাদকারী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা  এডভোকেট মো: সাইদুর রহমান মানিক। মঙ্গলবার এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি দুই দেশের সরকার প্রধানকে স্বাধীন বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা, আইনজীবী ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের পক্ষ থেকে এ অভিনন্দন জানান।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানী খাতে সহযোগিতার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের জাতীয় গ্রিডে আরো ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করেছে ভারত। পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুর গ্রিড থেকে বাংলাদেশের কুষ্টিয়ায় ভেড়ামারার আন্তঃ বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রিডের মাধ্যমে এ বিদ্যুৎ বাংলাদেশে আসছে।

গত ১০ সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকার গণ ভবন থেকে এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দিল্লি থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ বিদ্যুৎ সরবরাহ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেবও কলকাতা ও আগরতলা থেকে এ ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন। অংশ নেন দুই দেশের লাখ লাখ জনগন। এছাড়া ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজও যুক্ত ছিলেন এ অনুষ্ঠানে।

তিনি তাদেরকেও আন্তরিক অভিনন্দন জানান। সাইদুর রহমান মানিক বলেন, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কুষ্টিয়া ভেড়ামারায় নবনির্মিত ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাধর হাই ভোল্টেজ ডিসি ব্যাক টু ব্যাক ষ্টেশনের দ্বিতীয় পর্যায়েরও উদ্বোধন করেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। ভেড়ামারা থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত হয়েছিলেন তার প্রয়াত শশুর প্রাক্তন এম.পি রাজা জহুরুল হক। আর এখানেই নব নির্মিত ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার হাই ভোল্টেজ ডিসি ব্যাক টু ব্যাক ষ্টেশনের দ্বিতীয় পর্যায়ের উদ্বোধন করায় তিনি খুবই গর্বিত।

মুক্তিযোদ্ধা মো: সাইদুর রহমান মানিক বলেন,  আমার প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক বিশ্বের অন্যান্য অংশের জন্য রোল মডেল। বহু বছর ধরে আমাদের মধ্যে বিদ্যমান পারস্পরিক বিশ্বাস, শ্রদ্ধাবোধ এবং সুনামের কারণে আমাদের সম্পর্ক পরিপক্কতা পেয়েছে। এ সম্পর্ক আমাদের দৃঢ় আস্তার সঙ্গে পারস্পরিক সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করছে।

এতে দুই দেশের জনগনই লাভবান হচ্ছে। দুই দেশের লাভবান হওয়ার পেছনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বলিষ্ঠ ভূমিকা ও সৎ নেতৃত্ব আমাদের চিরদিন কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ রাখবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ক্রমান্বয়ে পূরণ হতে যাওয়ায় তিনি বঙ্গবন্ধু কণ্যাকে আবারো অভিনন্দন জানান। সাইদুর রহমান মানিক বলেন, আমাদের অবহেলিত নেত্রকোনায় “শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ” স্থাপনের ঐতিহাসিক ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমার নির্বাচনী এলাকা কেন্দুয়া-আটপাড়া উপজেলাবাসী তথা সমগ্র নেত্রকোনা জেলাবাসী চিরদিন শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ রাখবে।

তিনি বলেন, বন্ধু দেশ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তার বক্তব্যে বলেছেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ করার লক্ষ্যে কাজ করছেন। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্র করার শেখ হাসিনার ভিশনকে বাস্তবে রূপ দেয়ার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করা গর্বের বিষয় বলে উল্লেখ করেছেন। মোদি বলেছেন আমরা আমাদের সম্পর্ক বাড়াবো আর মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করব। সেভাবে আমরা উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির নতুন আকাশও স্পর্শ করব। নরেন্দ্র মোদির এরকম কাছে আসার এবং বাংলাদেশ ভারতের সম্পর্ক গভীর হওয়ার মনোভাব প্রকাশ করায় তিনি নরেন্দ্র মোদিকে লাখো লাখো অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান।


সাইদুর রহমান মানিক বলেন, এই সম্পর্ক ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সরকার বাংলাদেশকে যে আন্তরিক সহযোগিতা করেছেন আজ আবরো সেই সম্পর্কের কথাই তাকে স্মরণ করিয়ে দেয়।