রৌমারীতে অর্থাভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না মুক্তিযোদ্ধা শেরআলীর

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি | শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ৮, ২০১৯
রৌমারীতে অর্থাভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না মুক্তিযোদ্ধা শেরআলীর

অর্থভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না মুক্তিযোদ্ধা শেরআলীর (৬৭)। তিনি দীর্ঘদিন থেকে প্যারালাইসেস ও ডায়বেটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর পথে। অসুস্থ অবস্থায় রৌমারী স্বাস্থ্যকমপ্লে´, দিনাজপুর ডায়বেটিস হাসপাতাল এবং রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিজ সম্বল টুকু শেষ করে চিকিৎসায় রোগের উন্নতি না হলে বর্তমানে নিজ বাড়িতে মৃতুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। স্ত্রী আমেনা খাতুন (৫৫) সেও হৃদ

ও শ্বাসকষ্ট রোগে আক্রান্ত। বীরমুক্তিযোদ্ধা শেরআলী কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের উত্তর সাটকড়াইবাড়ি গ্রামের মৃতু আব্দুস ছামাদের ছেলে।

পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, জমাজমি বলতে কিছুই নেই। অন্যের বাড়িতে থাকত। রৌমারী সোনালী ব্যাংক থেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ৩লাখ টাকা ঋণ নিয়ে ৮শতক জমি কিনেছেন।‘জায়গা আছে ঘর নাই’ প্রকল্পের গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দেশরতœ শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় মেজে পাকাঁসহ একটি ১২ হাত ঘর নির্মাণ করে দেন।

তার ঘরে রয়েছে জুলফিকার আলী মন্ডল, আইনুল হক, আবু সাইদ মিয়া ও সাইফুল ইসলাম নামের চার ছেলে, সিরিয়া খাতুন ও শেফালী খাতুন নামের দুই মেয়ে। ছেলে তিনজন বিবাহ করে পৃথক হয়ে গেছে।

মেয়ে দুইজনের বিবাহ হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা শেরআলী ও তার স্ত্রী আমেনা খাতুনকে দেখাশোনা করেন আইনুল নামের এক ছেলে। বাবা-মা উভয় অসুস্থ হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তার পরিবার। মুক্তিযোদ্ধার ১০হাজার টাকা সম্মানী ভাতা দেওয়া হলেও চাল, ডালসহ ৮সদস্যের একটি পরিবারের ব্যয়ভার মোটেই সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়াও বাবা-মায়ের ওষুধ কিনতে হচ্ছে সব সময়ে। ফলে অর্থভাবে উন্নত চিকিৎসা করা হচ্ছেনা তাদের। স্বামী-স্ত্রী দুইজনে বর্তমানে মৃত্যুর পথযাত্রী।

বীরমুক্তিযোদ্ধা শেরআলী জানান, দেশরতœ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি আমার চিকিৎসার সুব্যবস্থা করে দেন তাহলে বাকি দিন কয়টা সুস্থ ভাবে জীবন যাপন করতে পারব।