কাজের মেয়েকে ধর্ষণের নামে মিথ্যাচার

নিজস্ব প্রতিবেদক | মঙ্গলবার, জুলাই ৯, ২০১৯
কাজের মেয়েকে ধর্ষণের নামে মিথ্যাচার

ময়মনসিংহের ত্রিশালের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সেকশন অফিসার সাইদুর রহমান বিরুদ্ধে কাজের মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগ তুলে পত্রপত্রিকা ও সোশ্যাল সাইটে ভুয়া খবর প্রচার করে সন্মানহানি করছে বলে জানান সাইদুর রহমান ।
এমন সংবাদের চরম নিন্দা জানিয়েছেন ঐ কাজের মেয়ে ও তার পরিবার ।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের বাসিন্দা সাইদুর রহমান তাঁর বিরুদ্ধে তোলা যৌন হেনস্থার অভিযোগ মিথ্যা, মনগড়া বলে দাবি করেছেন । শুধুমাত্র সম্মানহানি করার উদ্দেশ্যেই এমন অভিযোগ করা হয়েছে বলে আমাদের কন্ঠের কাছে দাবি করলেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সেকশন অফিসার সাইদুর রহমান ।

তাঁর বক্তব্য, পত্র পত্রিকা, ফেসবুক ও  সোশ্যাল সাইটে আমার বিরুদ্ধে যা লিখা হয়েছে তা স্ববিরোধী । সাইদুল ইসলাম ওই অভিযোগকে ‘বিদ্বেষপূর্ণ, মিথ্যা, রগরগে’ বলে বর্ণনা করে বলেন, ‘আমার বদনাম করতেই এই মিথ্যা অভিযোগ তোলা হয়েছে।

মনগড়া অভিযোগ। যা কখনও ঘটেনি। আমার সম্মানহানি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র- ছাত্রী ,প্রশাসন, কর্মকর্তা- কর্মচারি ও সাধারণ মানুষের মধ্যে আমার সম্পর্কে খারাপ ধারণা তৈরি করা হয়েছে এই মিথ্যা ও মনগড়া অভিযোগ তুলে।’

অপ্রপ্রচারকারী সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি মন্তব্য করে বলেন, সাংবাদিকতা যাদের কাছে মহৎ কোনো পেশা নয় । বরং অনৈতিক উপার্জনের মাধ্যম হিসেবে এই পেশাকে ব্যবহার করছেন। শুধু একটি পরিচয়পত্র সংগ্রহ করতে পারলেই সাংবাদিক বনে যাচ্ছেন অনেকেই। অনেকের ভাগ্য খুলে যাচ্ছে। অফিস-আদালত থেকে শুরু করে বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে এই পরিচয়পত্র ব্যবহার করে দাপটে ভীতসন্ত্রস্ত সাধারণ মানুষ ।

সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। অনেকটাই ব্রতচারীর ভূমিকা নিতে হয়। বস্তুনিষ্ঠ থেকেই সঠিক সংবাদ পরিবেশনাই একজন প্রকৃত সাংবাদিকের মূল লক্ষ্য। নির্মোহ থেকে কাজ করতে হয় তাকে। বিপরীত চিত্র যে নেই তা নয় ।

 সমাজে সাংবাদিক নামধারী অনেককেই পাওয়া যাবে, যাদের কাজই হচ্ছে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করা । সাংবাদিকতার নামে মানুষকে জিম্মি করে অনৈতিক সুবিধা নিচ্ছেন অনেকেই । আর এই মানুষগুলোই এই পেশার ক্ষতি করছেন প্রতিনিয়ত । সাংবাদিকতার মতো মহান পেশাকে কলুষিত করে নিজেদের আখের গুছিয়ে নিচ্ছেন তারা । এই পরিচয়পত্রধারী সাংবাদিকদের সঙ্গে অপরাধ জগতেরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে এখন ।

অনেক সময় এ ধরনের অপসাংবাদিকতার কবলে পড়ে আমার মত অনেক নিরীহই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তেমনি সাংবাদিকদের সম্পর্কেও নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি হচ্ছে সাধারণ মানুষের। বাধাগ্রস্ত হচ্ছে সৎ নিষ্ঠাবান সাংবাদিকতার। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পেশাদারিত্ব।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমাদের কন্ঠকে জানান, ধর্ষণের কোন অভিযোগ পাইনি । সাইদুর রহমানের নামে ধর্ষণের অভিযোগ বিষয়ে অবগত নই ।