কার পরিচয়ে বেড়ে উঠবে নিষ্পাপ এ শিশু সন্তানটি?

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি | রবিবার, এপ্রিল ৫, ২০১৫
কার পরিচয়ে বেড়ে উঠবে নিষ্পাপ এ শিশু সন্তানটি?

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের মধ্যসমেত (লামলীরপাড়) গ্রামের এক সংখ্যালঘু পরিবারের কিশোরী কন্যা (১৭) এর গর্ভের সন্তান ভূমিষ্ট নিয়ে এলাকায় তোলপাড় চলছে। গত ২ এপ্রিল ভোর ৫টার দিকে কুমারীর মেয়ে সন্তান ভূমিষ্ট হয়। কিন্তু কোন পরিচয়ে বেড়ে উঠবে নিষ্পাপ এ শিশু সন্তানটি ? পিতৃ পরিচয় পাবে কি নিষ্পাপ এ সন্তানটি ? এ নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি বিপাকে পড়েছে কুমারী মেয়ে ও তার পরিবার। সন্তানের জননী কুমারী ওই গ্রামের নম সুত্রের কিশোরী কন্যা।

কিশোরী কন্যার পারিবারিক ও এলাকাবাসী সুত্রে জানাযায়, প্রায় ৬/৭ মাস ধরে উপজেলার মধ্যসমেত (লামলীরপাড়) গ্রামের লক্ষন নম সুত্রের সহজ সরল কিশোরী কন্যা (১৭) কে একই গ্রামের লম্পট কদর আলীর পুত্র রিপন মিয়া প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তার সাথে শারিরীক সম্পর্ক গড়ে তুলে। এক পর্যায়ে সে বিয়ে করবে বলে সময় ক্ষেপন করতে থাকে।এ অবস্থায় ওই মেয়েটি ৬ মাসের অন্তঃসত্বা হয়ে পড়ে।

কিশোরী কন্যা ঘটনাটি রিপন মিয়াকে জানালে রিপন গর্ভপাতের জন্য চাপ দিতে থাকে। কিশোরী কন্যা বিয়ের জন্য রিপনকে বলার পরও রিপন কৌশলে বিষয়টি এড়িয়ে যায়। গর্ভধারণের এক পর্যায়ে বিষয়টি কিশোরীর পিতা মাতার নজরে আসে। তারা বিষয়টি জানতে চাইলে রিপনের সাথে দৈহিক মিলনের ফলে গর্ভধারন করেছে বলে জানায় কিশোরী । কিশোরী পিতা-মাতা রিপনকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে সে কৌশলে বিষয়টি এড়িয়ে যায়।

বর্তমানে নিষ্পাপ এ সন্তানটি নিয়ে বিপাকে পড়েছে কিশোরী কুমারী মেয়ে ও তার পরিবার। কিশোরী কন্যার পিতা-মাতা কোন উপায় না পেয়ে সামাজিকভাবে ঘটনাটির কোন সুরাহা না হওয়াতে নিরুপায় হয়ে কিশোরী মেয়ে নিজে বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। নবীগঞ্জ থানার মামলা নং ২৬ , ২৫/০২/২০১৫ইং। এ ঘটনার খবর পেয়ে লম্পট রিপন আত্মগোপনে চলে যায়। পরে এর ৮/৯দিন পর গভীর রাতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নবীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) গৌর চন্দ্র মজুমদারের নেতৃত্বে কুলাউড়া থানা পুলিশের সহায়তায় তাকে পীরের বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়।

অপরাধ সংবাদ/ম/স/উ/রুমি