ফেনীতে স্কুল ছাত্রীকে প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানির চেষ্টা

উবায়দুল্লাহ রুমি | শনিবার, মে ১৬, ২০১৫
ফেনীতে স্কুল ছাত্রীকে প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানির চেষ্টা
পরশুরাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে প্রকাশ্যে স্কুলের সামনে শ্লীলতাহানীর চেষ্টার ঘটনায় গতকাল বুধবার সকালে বখাটেকে গণধোলাই দিয়ে মাথা ন্যাড়া ও জুতার মালা পরিয়ে বাজার প্রদক্ষিন করে। এলাকাবাসী সূত্র জানায়, মঙ্গলবার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে প্রকাশ্যেই শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে পৌর এলাকার উত্তর গুথুমা গ্রামের মৃত কালা মিয়ার ছেলে বাদশা মিয়া (৩০)। এ ব্যাপারে অভিযোগ দেয়ার দুইদিনেও পুলিশ ও স্কুল কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নেয়নি। বরং প্রধান শিক্ষক বিষয়টি গোপন রেখে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। গতকাল বুধবার সকালে বিদ্যালয়ের এলাকাবাসী ওই বখাটেকে ধরে গণধোলাই দেয়। একপর্যায়ে মাথা ন্যাড়া করে জুতার মালা পরিয়ে বাজারের প্রধান সড়ক পদক্ষিন করে। পরে বিক্ষুদ্ধ লোকজন বাদশাকে বিদ্যালয়ের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদারকে না পেয়ে বিআরডিবির চেয়ারম্যান ইয়াছিন শরিফ মজুমদারের কাছে নিয়ে যায়। তাকে আটকের ব্যাপারে এস আই জাহেদকে ফোন করা হলে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যাবার পরামর্শ দিয়ে লাইন কেটে দেন। পরশুরাম বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাওলানা নুর মোহাম্মদ জানান, মঙ্গলবার ওই শিক্ষাার্থীকে ইভটিজিং করা হয়েছিল। বিষয়টি পরশুরাম থানার পুলিশকে জানানো হয়েছিল। গতকাল হঠাৎ কিছু লোকজন তাকে আটক করে স্কুলে নিয়ে যায়। পরশুরাম পৌর কাউন্সিলর নিজাম উদ্দিন সুমন জানান, ওই শিক্ষার্থীকে প্রকাশ্যেই বখাটে বদশা মিয়া শ্লীলতাহানী করে। পুলিশ ও স্কুল কর্তৃপক্ষ কোন ব্যাবস্থা না নিয়ে লোকজন আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছেন। পরশুরাম মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই জাহেদ আলম ও এসআই সফিকুল হোসেনের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তারা কোন কথা বলতে রাজি হননি।